বাংলাদেশে মসজিদের নির্মাণ কাজে ভারতীয় বিএসএফের বাধা!

কেরামতিয়া বড় মসজিদের দ্বিতীয় তলার ভবন নি'র্মাণ কাজে বা'ধা দিয়েছে ভারতের সীমান্তরক্ষী বা'হিনী বিএসএফ। ভারত-বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী এলাকা লালমনিরহাট জে'লার হাতীবান্ধা উপজে'লার বড়খাতা দোলাপাড়ায় জিরো পয়েন্টে অবস্থিত কেরামতিয়া বড় মসজিদের দ্বিতীয় তলার নি'র্মাণ কাজ চলছিল।

গত শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে ওই মসজিদের জানালায় গ্লাস লা'গানোর কাজে বা'ধা দেয় ভারতের শিতলকুচি থা'নার অমিত ক্যাম্পের বিএসএফের একটি টহল দল।

ভারতীয় বিএসএফের এ বা'ধার ঘ'টনায় মসজিদে জুমআর নামাজ পড়তে আসা মুসল্লিরা এতে ক্ষোভ প্র'কাশ করে। প্রতি শুক্রবার দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে নামাজ ও জেয়ারতের উদ্দেশ্যে কেরামতিয়া হুজুরের মাজার ও মসজিদে নামাজ পড়তে বহু মুসলিম নারী-পুরুষ সমবেত হয়।

উল্লেখ্য যে, ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের সময় মসজিদ ও মাজারটি সীমান্তবর্তী জিরো পয়েন্টে প'ড়ে যায়। দিন দিন মাজার ও মসজিদে বহু লোক সমাগহ হওয়ায় মসজিদ পুনঃনি'র্মাণের শুরু করা হলে আন্তর্জাতিক সীমান্ত আ'ইনের অজুহাতে ভারতীয় বিএসএফ এতে বা'ধা দেয়।

ফলে ২০১১ সালে বাংলাদেশ ও ভারতের উচ্চ পর্যায়ে মসজিদের নকশা অনুমোদন হওয়ার পর ওই বছরের ২৯ এপ্রিল দোতলা মসজিদ নি'র্মাণের কাজ শুরু হয়। কোটি টাকা ব্যয়ে এ মসজিদটির নি'র্মাণ কাজ এখনো চলছে।

গত কয়েক দিন ধ'রে মসজিদের দোতলায় জানালায় গ্লাস লা'গানো হচ্ছে। কিন্তু শুক্রবার দুপুরে ভারতীয় বিএসএফ ওই নি'র্মাণ কাজ ব'ন্ধ করে দেয়।

মসজিদ কমিটির তথ্য মতে, দুই দেশের মধ্যে নকশা অনুমোদন হওয়ার পরই মসজিদটির নি'র্মাণ কাজ শুরু হয়। কিন্তু প্রায় সময় ভারতীয় বিএসএফ নানা অজুহাতে নি'র্মাণ কাজে বা'ধা দেয়। মসজিদটির জানালায় রঙিন গ্লাস লা'গাতে গেলে তারা বাঁধা দেয়। পরবর্তীতে সাদা গ্লাস লা'গাতে শুরু করে মসজিদ কমিটি। আর তাতেই গত শুক্রবার সাদা গ্লাসও লা'গাতে বা'ধা দেয় তারা।

তবে এ স'মস্যা সমাধানে বিজিবি ও বিএসএফের মধ্যে আলোচনা চলছে বলেও জানা যায়।