একদিন না যেতেই সিদ্ধান্ত বদলালেন চীন

একদিন না যেতেই সিদ্ধা'ন্ত বদল করলেন চীন। মঙ্গলবার কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের পাশে দাঁড়িয়েছিল চীন। বার্তা ছিল, ভারত এবং পাকিস্তানকে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমেই কাশ্মীরের স'মস্যার সমাধান ক'রতে হবে। কিন্তু ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই কার্যত উল্টো অবস্থান নিয়ে সরাসরি পাকিস্তানের পাশে দাঁড়ালেন শি চিনফিং। খবর আনন্দবাজারের

বুধবার চীনের প্রেসিডেন্ট বলেছেন, কাশ্মীর প'রিস্থিতির উপর নজর রাখছেন তাঁরা। এই ইস্যুতে বেজিং যে পাকিস্তানের পাশেই দাঁড়াবে, সেটাও স্পষ্ট করে দিয়েছেন শিনফিং।

বর্তমানে বেজিং সফরে রয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইম'রান খান। ইতিমধ্যেই চীনা প্রধানমন্ত্রীর স'ঙ্গে তাঁর বৈঠক হয়েছে। বুধবার ছিল প্রেসিডেন্ট শিনফিংয়ের স'ঙ্গে বৈঠক। চিনের সংবাদ মাধ্যম জিনহুয়া নিউজের খবর, ওই বৈঠকেই শিনফিং বলেছেন, ‘‘কোনটা ঠিক কোনটা ভুল, সেটা স্পষ্ট।’’
কাশ্মীর প'রিস্থিতির দিকে নজর রাখা হচ্ছে এবং বেজিং ইসলামাবাদের পাশেই থাকবে— এমন আশ্বাসও শিনফিং ইম'রানকে দিয়েছেন বলে জিনহুয়া নিউজ সূত্রে খবর।

আন্তর্জাতিক মহলে পাকিস্তানের শত্রু এবং ভারত বিরোধী বলেই পরিচিত চীন। এ দিন সেই বার্তা আরও স্পষ্ট করে শিনফিং বলেছেন, ‘‘আন্তর্জাতিক বা আঞ্চলিক প'রিস্থিতিতে যে পরিবর্তনই আসুক, পাকিস্তানের স'ঙ্গে চীনের ব'ন্ধুত্ব কখনওই ভাঙেনি, বরং পাথরের মতো দৃঢ় থেকেছে। বেজিং-ইসলামাবাদ পারস্পারিক সহযোগিতাও সব সময়ই রয়েছে।’’

মাঝে আর এক দিন। তার পরেই দু’দিনের বেসরকারি সফরে ভারতে আ'সছেন চীনের প্রেসিডেন্ট। এই সফরে চেন্নাইয়ে মোদীর স'ঙ্গে বৈঠকও হওয়ার কথা শিনফিংয়ের। ৩৭০ ধারা বিলোপ করে জম্মু কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা তোলার পরেই ভারত-পাকিস্তান স'ম্পর্কে চরম অবনতি হয়েছে।
আন্তর্জাতিক মহলে, এমনকি জাতিসংঘেও বিষয়টি নিয়ে ভারতের বি'রুদ্ধে সরব হয়েছে পাকিস্তান। এই প'রিস্থিতিতে শিনফিংয়ের সফর এবং মোদীর স'ঙ্গে বৈঠক ঘিরে আশা বাড়ছিল দিল্লির। কিন্তু তার সফর শুরুর দু’দিন আগে চীনা প্রেসিডেন্টের এই বার্তা তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে কূটনৈতিক মহল।