বলতে লজ্জা নেই, বাথরুম পরিষ্কার করেও খেয়েছি: শামীম ওসমান

চলমান ‘শুদ্ধি অভিযান’ নিয়ে কোনও ‘ভয়-ভীতি’ নেই জানিয়ে নারায়ণগঞ্জের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বলেছেন, ‘এই শুদ্ধি অভিযান নিয়ে আমার নেত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানানো ‍উচিত। আমি তো ভীত নই!

আমার তিন পুরুষ রাজনীতি করা মানুষ। একটি ধনী পরিবারের ছেলে আমি। অথচ বলতে লজ্জা নেই, যখন দেশ ছেড়ে গিয়েছিলাম তখন ১৮ ঘণ্টা কাজ করে খেয়েছি, একবেলা খেয়েছি আরেক বেলা খাইনি। এমনকি বাথরুম পরিষ্কার করেও খেয়েছি।’

মঙ্গলবার রাতে বেসরকারি টিভি চ্যানেল ডিবিসির রাজকাহন শিরোনামের ‘শুদ্ধি অভিযান : ত্যাগী বনাম হাইব্রিড’ শীর্ষক রাজনৈতিক টকশোতে উপস্থিত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

শামীম ওসমান বলেন, ‘আমি একজন আইনের ছাত্র। আমি কাউকে অপরাধী বলতে পারি না। অপরাধী কে, তা নির্দিষ্ট করবে কোর্ট।’

শুদ্ধি অভিযানে নিজ দলের নেতাদের গ্রেফতার হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘যাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে তাদের নিয়ে আমি কেন বিব্রত হবো? বরং আমি গর্ববোধ করি। কারণ, আমার নেত্রী শেখ হাসিনা অপরাধপ্রবণতা বেড়ে যাওয়ার কারণেই এই অভিযান চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন। এখানে কে আত্মীয় আর কে অনাত্মীয় তা দেখার সুযোগ নেই।’

শামীম ওসমান বলেন, ‘ক্যাসিনো দুর্নীতির মধ্যে পড়ে, তা আমি বলবো না। তার আগে জানা দরকার- এই ক্যাসিনো যন্ত্র কীভাবে এলো? এতিমদের টাকা মেরে দেয়ায় এদেশের তিনবারের প্রধানমন্ত্রী (খালেদা জিয়া) কিন্তু আদালতের রায়ে জেল খাটছেন।’

তিনি বলেন, ‘এই শুদ্ধি অভিযানের জন্য আমাদের বুদ্ধিজীবী সুশীল সমাজের কি উচিত ছিল না প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দেয়া? পৃথিবীর সব জায়গাতেই দুর্নীতি হয়। কোথায় হয় না? তবে দেখার বিষয় হচ্ছে আইনের আওতায় আসে কিনা।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী যে অভিযান শুরু করেছেন সেটা বহাল থাকবে। তবে কষ্ট এখানেই, তাকে কি একটা ধন্যবাদ আমরা জানাতে পারতাম না?’

টক-শোতে শামীম ওসমান ছাড়াও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নাল আবেদীন ফারুক, তৈমূল আলম খন্দকার ও আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল ওয়াদুদ উপস্থিত ছিলেন।