নলডাঙ্গায় যুবলীগ কর্মীকে পি’টিয়েছে দুই যুবলীগ কর্মী

পূর্ব বিরোধের জের ধরে নাটোরের নলডাঙ্গায় এরশাদ নামের এক যুবলীগ কর্মীকে পি’টিয়ে র’ক্তাক্ত করেছে অপর দুই যুবলীগ কর্মী আব্দুল কুদ্দুস ও সিরাজুল ইসলাম। আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলার বিপ্রবেলঘরিয়া ইউনিয়ন মোড়ে এ হা’মলার ঘটনা ঘটে। আ’হত এরশাদ আলীকে স্থানীয়রা উদ্ধার স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ঘটনায় উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক তৌহিদুর রহমান লিটন হামলাকারী দুই যুবলীগ নেতা আব্দুল কুদ্দুস ও তার ভাই সিরাজুল ইসলামকে আ’টক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। আ’হত এরশাদ আলী(৩২) বিপ্রবেলঘরিয়ার সাজিপাড়া গ্রামের মজনু প্রামাণিকের ছেলে। আ’টক যুবলীগ দুই নেতা আব্দুল কুদ্দুস ও সিরাজুল ইসলাম একই গ্রামের মৃ’ত গেদন শাহের ছেলে।

নলডাঙ্গা থানা পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, সোমবার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলার বিপ্রবেলঘরিয়া ইউনিয়ন পরিষদ মোড়ে পূর্ব বিরোধের জের ধরে বিপ্রবেলঘরিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ কর্মী এরশাদ আলীর সাথে অপর দুই যুবলীগ নেতা আব্দুল ও সিরাজুলের কথা কা’টাকাটি হয়। এক পর্যায়ে যুবলীগ কর্মী এরশাদ আলীকে পি’টিয়ে র’ক্তাক্ত জ’খম করে কুদ্দুস ও সিরাজুল। আ’হত এরশাদকে স্থানীয়রা উ’দ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

পরে এ ঘটনায় উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী তৌহিদুর রহমান লিটন হামলাকারী দুই যুবলীগ নেতা আব্দুল কুদ্দুস ও তার ভাই সিরাজুল ইসলামকে আ’টক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

তৌহিদুর রহমান রিটন বলেন, তারা তিনজনই আমার ঘনিষ্ঠ ও আপন। অ’পরাধ যেই করুক না কেন তাদের আইনের মাধ্যমে শাস্তি নিশ্চিত করতে চাই।

নলডাঙ্গা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হুমায়ন কবির ঘটনার সত্যতা স্থীকার করেন জানান, তুচ্ছ ঘটনায় পূর্ব বিরোধের জের ধরে এরশাদ আলী নামের একজনকে পি’ঠিয়ে জ’খম করেছে। এ ঘটনায় আব্দুল কুদ্দুস ও সিরাজুল ইসলামকে আ’টক করা হয়েছে। তাদের বি’রুদ্ধে মা’মলা করার প্রস্ততি চলছে।