রিকশাচালক থেকে পীর সেজে ভ’ন্ডামি

কয়েক বছর আগে রিকশা চালিয়ে জীবিকা ক'রতেন শরীয়তপুরের জাজিরা উপজে'লার বিলা'শপুর ইউনিয়নের সফি কাজিরমোড় মেহের আলী মাদবরকান্দি গ্রামের মরু মোল্লার ছেলে আশেদ চাঁন মোল্লা (৩০)। ঢাকার দোহার নূরুল্লাহ্পুর পাক দরবার শরীফে মুরিদ হয়ে নাম পরিবর্তন করে নিজে পীর সেজে এখন নাম রেখেছেন হজরত শাহ্ আশেদ চাঁন ফকির পাগলা।

এক সময় অভাবে দিন কাটলেও এখন পীর হয়ে চিকিৎসা দেয়ার নামে তাবিজ-কবজ দিয়ে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে গড়ে তুলেছেন বিলাসবহুল দুটি মাজার শরীফ। সেই মাজারে বিভিন্ন জে'লা থেকে মুরিদরা ও এলাকার কিছু লোকজন এসে আশেদ চাঁন ফকিরের পায়ে সেজদা দেয়। শুধু তাই নয় পীর হয়ে নারী-পুরুষদের নিয়ে রাত জেগে মা’দক সেবন এবং নাচগান করেন তিনি। আশেদ চাঁন ফকিরের ইসলামরিরোধী এসব কার্যকলাপের বেশ কিছু ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এ নিয়ে তার বি'রুদ্ধে মানব ব'ন্ধন করা হয়।

মানব'ন্ধনে বক্তারা বলেন, আসেদ চাঁন ফকির ভ’ণ্ড পীর। তিনি কয়েক বছর আগে এলাকায় হকারি, কাঁচামালের ব্যবসা ক'রতেন, রিকশা চালতেন। কিছু ভণ্ড লোকের প্ররোচনায় প্রথমে ফকিরের বেশ, পরে ভ’ণ্ড পীর হয়েছেন তিনি। আস্তানা করে কিছু সহজ সরল মানুষকে ভুল বুঝিয়ে তাবিজ-কবজের মাধ্যমে বশীভূত করেন এবং তার পায়ে সেজদা করান। ওরশের নামে নারী-পুরুষদের দিয়ে রাতভর নাচানাচি করেন। শুধু তাই নয় তার আস্তানায় মা’দক সেবন ও মা’দক বিক্রি হচ্ছে। এ কারণে সমাজের যুবকরা কুসংস্কার ও ধ্বং'সের দিকে ধাবিত হচ্ছে। তাই ভণ্ড পীর আসেদ চাঁন ফকিরের আস্তানা উচ্ছেদ ও তার কার্যকলাপ ব'ন্ধ করা প্রয়োজন।