অর্ধেক লক ডাউন তুলে নিল বাংলাদেশ, ভয়াবহ বিপদ সামনে

বিশ্বের উন্নত আধুনিক দেশগুলো যখন দুই মাস পর ‘লক ডাউন’ শিথিল করার চিন্তাভাবনা করেছে, সীমিত আকার বা আস্তে আস্তে লক ডাউন শিথিল করছে, সেখানে বাংলাদেশ একমাসের মাথায় প্রায় অর্ধেক লক ডাউন তুলে নিয়েছে।

এমনিতেই সাধারণ ছুটি ছিল ঢিলেঢালা, ঘর থেকে মানুষ বের হচ্ছিল, সারাদিনই বিভিন্ন বাজার হাটে মানুষের জমায়েত দেখা গেছে, এক স্থান থেকে মানুষ আরেক স্থানে চলে গেছে নানা অজুহাতে, বাস, ট্রলার, ট্রেন নানা গুপ্তপথে মানুষ স্থা'নান্তর হয়েছে যেটা সামাজিক সংক্র'মণের সবচেয়ে বড় ঝুঁকি। কিন্তু তারপরও একটি ছুটি ছিল। আংশিক হলেও এই ছুটির কারণে করোনার সামাজিক সংক্র'মণ ঠেকানোর একটা ইতিবাচক পদক্ষে'প বলে মনে করছিলেন চিকিৎসক এবং বিশেষজ্ঞরা।

কিন্তু এখন ত্রিশ দিনের মাথায় সরকার প্রায় অর্ধেকটা খু'লে দিয়ে করোনাকে বৃ'দ্ধাঙ্গু'লি দেখালো, অবজ্ঞা করলো করোনাকে। বাংলাদেশের সরকারী মহলের কিছু কিছু ব্যক্তির ভাবভঙ্গি এবং আলাপ আলোচনা কথা'বার্তার ধ'রণ এরকম যে, করোনায় বাংলাদেশে কিচ্ছু হবে না। করোনায় বাংলাদেশে বড় ধ'রণের কোন প্র'ভাব ফেলবে না। বরং করোনার কারণে এরকম ব'ন্ধ থাকাটা অনুচিত হচ্ছে।

গতকাল এফবিসিসিআই এক আলোচনা সভার আয়োজন করেছিল, যার আলোচনায় টাকা উপার্জনে মরিয়া ব্যবসায়ীরা যে কোন মূল্যে শিল্প কারখানা খু'লে দেওয়ার জন্য পাগলপ্রায় হয়ে উঠেছে। এই সমস্ত চাপে তাপে শেষ পর্যন্ত সরকার ১৮ টি মন্ত্রণালয়সহ গার্মেন্টস কারখানা খু'লে দিয়েছে। শুধু গার্মেন্টস নয়, আরো কিছু রপ্তানিমুখী শিল্প কারখানা খু'লে দিয়ে করোনাকেই চ্যালেঞ্জ দিয়েছে। এই চ্যালেঞ্জে কি বাংলাদেশ জিততে পারবে?

আম'রা যদি দেখি বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনায় যে আক্রা'ন্ত হয়েছে সেই আক্রা'ন্তের সংখ্যা খুব একটা বেশি না। কিন্তু যতজনের পরীক্ষা হয়েছে তা থেকে এটি বলার কারণ নেই, বাংলাদেশে করোনার ম'হামা'রি সংক্র'মণের আশংকা নেই। বরং পরীক্ষা কম হওয়ার কারণে বাংলাদেশে ব্যা'পক হারে সামাজিক সংক্র'মণের ঝুঁকি তৈরী হয়েছে বলেই বিশেষজ্ঞরা মনে করেন। সেই বাস্তবতায় আরো কিছুদিন, অ'ন্তত সরকার ঘোষিত ৫ মে পর্যন্ত যে ছুটি ছিল তা কঠোরভাবে পা'লন করা উচিত ছিল।

অ'ন্তত গার্মেন্টস এবং অন্যান্য শিল্প কারখানা ব'ন্ধ করার মধ্য দিয়ে প'রিস্থিতিটা নি'য়ন্ত্রণে রাখা যেত। আম'রা এই ৪৫ দিন বা দুই মাস যদি ব'ন্ধ রাখতাম তাহলে আমাদের অর্থনীতিতে খুব মহাভারত অশুদ্ধ হওয়ার কথা ছিল না। কিন্তু সরকারের কাছে এমন সব তথ্য দেওয়া হচ্ছে যাতে করোনার চেয়েও ভয়ঙ্কর হলো গার্মেন্টস না খু'লে দেওয়া এবং অর্থনৈতিক সঙ্কট।

অন্যদিকে সরকারের কাছে এই তথ্যও দেওয়া হচ্ছে, করোনায় আক্রা'ন্তের সংখ্যা ৫ হাজারের কিছু বেশি যেটা খুব বড় বিষয় না। ইতালি, স্পেন, মা'র্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো বাংলাদেশে প'রিস্থিতি নেই।
কাজেই এখনি বাংলাদেশে যদি কলকারখানা খু'লে না দেওয়া হয় তাহলে করোনার জন্য নয়, অভাবের কারণে সাধারণ মানুষ কষ্টে ভুগবে এবং মা'রা যাবে। আর এই সমস্ত বুদ্ধি দিচ্ছে সরকারের ভিতরে থাকা নানা রকম সিন্ডিকেট এবং প্রেসার গ্রুপ।

আম'রা দেখেছি যে, গত ১১ বছরে সরকারের কাঠামোতে গার্মেন্টস মালিকরা একটা বড় জায়গা তৈরী করে নিয়েছে। তারা একের পর এক মনোনয়ন পায় নির্বাচনে। এখান থেকে বোঝা যায় ক্ষ'মতার কে'ন্দ্রে তাদের একটি শ'ক্তিশালী অবস্থান রয়েছে। তারপরও যে শেখ হাসিনা তাদের একমাস গার্মেন্টস খোলা ঠেকিয়ে রেখেছিলেন, এটি একটি বড় বিস্ময়।

আবার একই স'ঙ্গে বাংলাদেশে অন্যান্য যে শিল্প গ্রুপ আছে তারাও কম যান না, তারা জনগনের স্বার্থে বা জনস্বার্থের চেয়ে তাদের কারখানাকে চালিয়ে রাখাটাকেই বড় করে দেখছে।

অথচ দেখু'ন এই সময়ে ফুল চাষীরা প্রায় নি:স্ব হয়েছে তাদের জন্য কথা বলার কেউ নেই। এই সময় ক্ষুদ্র মাঝারি শিল্পের স'ঙ্গে যারা জড়িত, পয়লা বৈশাখের ছোট ছোট কুটির শিল্পের যে ব্যবসা তা যে পথে বসে গেছে, হোটেল রেস্টুরেন্টের মালিকরা নি:স্ব হয়ে গেছে- তাদের জন্যও কথা বলার কেউ নেই।

শুধু মাত্র কথা বলা হচ্ছে যাদের কে'ন্দ্রীক ক্ষ'মতা আছে। আর তাদের ভুল প'রামর্শ, তথ্য ও দিক নির্দে'শনায় করোনাকে আম'রা অবজ্ঞা করছি। যার পরিণাম বাংলাদেশের জন্য হতে পারে ভ'য়াবহ।